সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সেলিনা পারভিন, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সন্ধ্যা রানী সাহা ও মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম রেজা ঠিক মতো অফিসে না আসার অভিযোগ উঠেছে। ফলে প্রতিদিন বিভিন্ন সেবা নিতে আসা লোকজন সেবা না পেয়ে নানা হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

জানা গেছে, এই তিন অফিসের কর্তা ব্যক্তিরা নানা অজুহাতে সপ্তাহে ৪/৫ দিন অফিসে তালা ঝুলিয়ে নিজেদের ব্যক্তিগত কাজে বাসা-বাড়িতে অবস্থান করেন। দীর্ঘদিন ধরে এমন অবস্থা চলে আসলেও তা যেন দেখার কেউ নেই।

ভুক্তভোগীদের দীর্ঘদিনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বেশ কয়েকদিন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সন্ধ্যারানী সাহার অফিসে সকাল ৯ টা থেকে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করেও তার দেখা পাওয়া যায়নি। অন্য দিকে সকাল ৯টা থেকে দুপুর পর্যন্তু অপেক্ষা করে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে অফিসে পাওয়া যাইনি। দুই অফিসের কর্মচারীরা জানান তিনি অফিসে আসবেন বাইরে কাজে ব্যস্ত আছেন তবে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করেও তাদের কোনো দেখা পাওয়া যায় না।

অন্য দিকে বেশ কয়েকদিন সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে বেলা সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত উপজেলা মৎস্য অফিসে অপেক্ষা করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।

মৎস্য কর্মকর্তাকে অফিসে না পেয়ে সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান বাসায় আছেন একটু পরে আসবেন। প্রতিবেদক কে অপেক্ষা করতে বলেন একটু পরে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম রেজা এসে তিনি বলেন, আমি ৯ টার দিকে এসেছিলাম বাসায় একটু কাজ ছিল যার কারণে চলে যাই। আমার বাসা আর অফিস কাছাকাছি তাই অফিসে থাকি আর বাসায় থাকি সমান কথা ফোন দেয়ার সাথে সাথে অফিসে আসতে পারি আমি।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেরিনা সুলতানা বলেন, এ ভাবে অফিস ফাঁকি দেয়ার সুযোগ নাই। আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম এ জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনাদের কাজ আপনারা চালিয়ে যান আমি ব্যবস্থা নিচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!
%d bloggers like this: