আসন্ন ১৭ অক্টোবর রোজ সোমবার নীলফামারী জেলা পরিষদ পরিষদের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। উক্ত নির্বাচনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে সাধারণ ওয়ার্ড ৪,৫ ও ৬নং ওয়ার্ড (নীলফামারী সদর, সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ) উপজেলায় ৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।এই ৬ জনের মধ্যে সকল ইউপি চেয়ারম্যান এবং ইউপি সদস্যদের মনে স্থান করে নিয়ে প্রচার প্রচারণার শীর্ষে অবস্থান করছেন সুপরিচিত সৎ, যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের অধিকারী মোছাঃ শিউলি আক্তার।

সরেজমিনে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের সাথে কথা বলে এবং ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে তিনটি উপজেলার সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য এবং সংরক্ষিত নারী সদস্যদের মুখে একটাই কথা সেটা হচ্ছে সততার প্রশ্নে আপোষহীন, সকলের আস্থাভাজন তারুণ্যের প্রতীক এবং সকলের প্রিয়মুখ মোছাঃ শিউলি আক্তারের নাম। প্রতিটি ইউনিয়নের হাটে বাজারে রাস্তা ঘাটে বিভিন্ন চায়ের দোকানে এবারের নির্বাচনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে মোছাঃ শিউলি আক্তার ও তার নির্বাচনী প্রতীক ফুটবল মার্কার নাম প্রকাশ পাচ্ছে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক তিনটি উপজেলার ইউনিয়ন এবং দুইটি পৌরসভার একাধিক সদস্যরা বলছেন, আমরা সাধারণ মহিলা সদস্য পদে প্রার্থী হিসেবে যোগ্য প্রার্থীকেই জয়লাভ করাবো, তাহলে আমরা আমাদের দাবী দাওয়া ঠিক মত আদায় করতে পারবো।

আসন্ন নির্বাচনে হেভীওয়েড প্রার্থী হিসেবে মিষ্টভাষী মোছাঃ শিউলি আক্তারের নাম মাঠে ঘাটে শুনা যাচ্ছে। নির্বাচনকে ঘিরে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদপ্রার্থী মোছাঃ শিউলি আক্তার তার নির্বাচনী প্রতীক ‘ফুটবল’ মার্কায় ভোট প্রত্যাশা করে প্রচার প্রচারণার পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময়সহ সবমিলিয়ে ব্যস্ততম সময় পার করছেন।

এবিষয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মোছাঃ শিউলি আক্তার প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, আমার নির্বাচিত হওয়ার প্রধান ও প্রথম লক্ষ্য হবে দলমত নির্বিশেষে নীলফামারী, কিশোরগঞ্জ ও সৈয়দপুরকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার প্রত্যেক ইউপি চেয়ারম্যান মেয়র কাউন্সিলর ইউপি সদস্যসহ সকল সংরক্ষিত নারী সদস্য এবং এলাকার ময় মুরুব্বিবৃদ্ধকে নিয়ে নিয়মিত মিটিং করে এলাকা ও সাধারণ মানুষের চাহিদা প্রয়োজনীয়তা অগ্রাধীকারের ভিত্তিতে প্রত্যেক এলাকায় সুষম বন্টন নিশ্চিত করা। আর এই সুষম বন্টন নিশ্চিত করার পাশাপাশি নীতি নৈতিকতার সাথে দায়িত্বে পালন করব-ইনশাআল্লাহ।পরিশেষে তিনি সকলের মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনা করার পাশাপাশি আগামী ১৭ অক্টোবর নির্বাচনে সকলের নিকট তার নির্বাচনী প্রতীক ‘ফুটবল’ মার্কার জন্য দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন।
উল্লেখ্য যে, আগামী ১৭ অক্টোবর নির্বাচনে তিনটি উপজেলা সকল ইউনিয়ন, দুইটি পৌরসভা এবং তিনটি উপজেলার মেয়র, কাউন্সিলর, চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য এবং সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্যরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Don`t copy text!
%d bloggers like this: