—–এহেছানুল হায়দর বাবুল

রাউজান(চট্টগ্রাম)উপজেলা সংবাদদাতাঃ

রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একে এম এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল বলেছেন ৬১ হিজরির ১০ মুহররম ফোরাত নদীর তীরে কারবালার প্রান্তরে মহানবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা (দ.) এর দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন(রঃ) দামেস্ক অধিপতি কুখ্যাত ইয়াজিদের সেনাবাহিনীর হাতে স্বপরিবারে শাহাদাত বরণ করলে এ দিনটি ঐতিহাসিক কারবালা দিবস হিসেবে মুসলিম উম্মাহর ঘরে ঘরে স্মরনীয় বরণীয় হয়ে আছে। তিনি বলেন নীতি-আদর্শ, সত্য-মানবতার মুক্তির জন্য নিঃসংকোচে এ রকম প্রাণদানের ঘটনা বিরল।হজরত ইমাম হোসাইন(রঃ) দৃঢ়প্রত্যয় ও অতুলনীয় আত্মত্যাগের দীক্ষা আমাদেরকে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে উজ্জীবিত করে।তিনি বলেন আহলে বায়তের প্রেম মানে ঈমান।তাই আহলে বায়তকে যারা ভাল বাসবেনা তারা ঈমানদার হতে পারেনা। তিনি সোমবার (৮আগস্ট) রাতে রাউজান আমিরহাট হযরত এয়াছিনশাহ পাবলিক কলেজের মরহুম একে এম ফজলুল কবির চৌধুরী হল রুম আহলে বায়তে রাসুল (দঃ) স্মরণে ১১তম মহান শোহাদায়ে কারবালা মাহফিল ও গরিব অসহায়দের মাঝে দ্রব্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।চট্টগ্রাম ইহরাম হজ্জ কাফেলার পরিচালক আলহাজ্জ আল্লামা গোলাম মোস্তফা শায়েস্তাখান আযহারীর সভাপতিত্বে এবং বাস্থবায়ন কমিটির আহবায়ক মুহাম্মদ জাবেদ ও সচিব মাওলানা মোজাম্মেল হোসাইনের যৌথ সঞ্চালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মাহফিলের প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান সাংবাদিক মাওলানা এম বেলাল উদ্দিন।প্রধান বক্তার তকরির করেন অধ্যাপক আলহাজ্জ আল্লামা সৈয়দ হাসান মোরাদ কাদেরী। বিশেষ বক্তা ছিলেন সাবেক উপাধ্যক্ষ আল্লামা কাজী সাইদুল আলম খাকী,লেখক গবেষক আল্লামা জসিম উদ্দিন আবেদী,আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্জ মাহবুবুল আলম ।উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ মুহাম্মদ ফারুক,আলহাজ্জ মাওলানা বাহাউদ্দিন মুহাম্মদ ওমর, ইউপি সদস্য তৌহিদুল আনোয়ার বাবুল,গিয়াস উদ্দিন,সাংবাদিক মাওলানা দিদারুল আলম,মাষ্টার মোস্তাফিজুর রহমান,মাষ্টার মুহাম্মদ সোলায়মান,মাষ্টার মুহাম্মদ ফরিদ মিয়া,মাষ্টার মুহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম,মাষ্টার মোঃ জামাল উদ্দিন,আলহাজ্জ মাওলানা সোলায়মান চৌধুরী,মাওলানা মুনসুর উদ্দিন নেজামি,মাওলানা এয়াছিন,মাওলানা নেজাম উদ্দিন তৈয়বি,মাওলানা সৈয়দ গিয়াস উদ্দিন,ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম,শায়ের মাওলানা আবদুল মাবুদ,মাদ্রাসা সুপার মাওলানা মোরসেদ রেযা কাদেরী,মাদ্রাসা সুপার মাওলানা নাসির উদ্দিন কাদেরী,গাউছিয়া হক কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ মামুন মিয়া,নাজিম উদ্দিন কালু, মাওলানা আবদুল মালেক,মাওলানা ইকবাল হোসেন,শায়ের মাওলানা মিনহাজ উদ্দিন কাদেরী,শায়ের মাওলানা ওসমান গণী কাদেরী,শায়ের হাফেজ মিনহাজ,মাওলানা হাফেজ আবু ছালেহ,মাওলানা ছালেহ আকবর,মাওলানা ইউছুফ তৈয়বি,মাওলানা কুতুব উদ্দিন,মাওলানা এমরান হোসাইন,মোস্তাফিজুর রহমান মানিক,মাওলানা মুহাম্মদ এরশাদ, বাস্তবায়ন কমিটির উপদেষ্টা সৈয়দ মুহাম্মদ কামাল উদ্দিন, শেখ মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর,সদস্য মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন ভান্ডারী,মুহাম্মদ মোজাফ্ফর,মাওলানা নঈমুল হক,মুহাম্মদ আলী,মুহাম্মদ মহিউদ্দিন প্রমুখ।অনুষ্টানে প্রতিবছরের ন্যায় গরিব অসহায়দের মাঝে দ্রব্য সামগ্রী তুলে দেন এহেছানুল হায়দর বাবুল।পরে মিলাদ কিয়াম,আখেরী মোনাজাত ও তাবরুক বিতরন করা হয়।মোনাজাত পরিচালনা করেন অধ্যাপক আলহাজ্জ আল্লামা সৈয়দ হাসান মোরাদ কাদেরী. প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Don`t copy text!