জাতীয় নির্বাচনের মতো উত্তেজনা না থাকলেও স্টুডেন্ট কাউন্সিল নির্বাচনের সব আয়োজনই জাতীয় নির্বাচনের মতো। ভোট কেন্দ্র, ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপার সবই আছে।

আছে নির্বাচন পরিচালনা ও আইন শৃঙ্খলার জন্য আছেন নির্বাচন কমিশনার, প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও নিরাপত্তাকর্মীরা। কেন্দ্রে নিযুক্ত আছেন প্রার্থীদের পোলিং এজেন্ট। এটা
মশিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চিত্র।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ ফজলুল হক বলেন, উপজেলার কিরণবালা সঃ প্রাঃবিদ্যালয়, ইব্রাহিম মডেল সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, নলুয়া সঃ প্রাঃ, দূর্গাদহ সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়, মাদলা সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়সহ ২২৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গত বৃহস্পতিবার এবং শনিবার স্টুডেন্ট কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচনের আগে কয়েক দিন ধরে প্রচার-প্রচারণা চালায় নির্বাচনের প্রার্থী খুদে শিক্ষার্থীরা। সকাল নয়টা থেকে শুরু করে বেলা একটা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলে ভোট গ্রহণ।

উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতি ঘটে। সকাল ৯টায় মশিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে ব্যালট পেপার, ব্যালট বাক্স ও গোপন বুথ তৈরি দেখা যায়। ভোটারদের লম্বা সারি তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণীর ১১৭ শিক্ষার্থী ভোট দেওয়ার অপেক্ষায় চুপচাপ সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে।

একজন একজন করে বুথের ভিতর ভোট দিতে প্রবেশ করে। এ বিদ্যালয়ে মোট ১৪ প্রার্থী প্রতিদ্বিতা করে। ভোটাররা আটজন প্রতিনিধিকে নির্বাচিত করে। নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার সবাই তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

এ বিদ্যালয়ে নির্বাচনের সময় উপস্থিত ছিলেন, অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি মোঃ ইকবাল হোসেন নয়ন, সহ-সভাপতি মোঃ সাহেব আলী, গাঁড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের সন্মানিত সদস্য মোঃ মাসুদ রানা ও সুফিয়াসহ অভিভাবকবৃন্দ।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী সাবিকুর রহমান বলেন, শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট গ্রহণ চলছে

Leave a Reply

Your email address will not be published.