নিজস্ব প্রতিবেদক:

ভুয়া সাংবাদিক পরিচয়ে আমেরিকা সফর করার অভিযোগ উঠেছে সৈয়দা মুনিরা ইসলাম নামের এক মহিলার বিরুদ্ধে। বিষয়টি নিয়ে বেশ সমালোচনা চলছে সাংবাদিক মহলে। সাংবাদিকতা না করেও তিনি কি ভাবে হলেন আরটিভি’র স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, কি ভাবে সংগ্রহ করলেন, পি আই ডি কার্ড, এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে সাংবাদিকদের মধ্য।
এ নিয়ে শুধু আরটিভি নয় দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মীরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, যে মহিলা কোনো দিনই কোন স্তরের সাংবাদিকতা করেননি। সাংবাদিকদের কোন সংগঠনের সাথে জড়িত নন। বাংলাদেশের কোন সাংবাদিকও তাকে চেনেন না। অথচ তিনি সাংবাদিক পরিচয়ে আমেরিকার ভিসা সংগ্রহ করে আমেরিকা ভ্রমণ করেন কি ভাবে? এর পেছনের মদদদাতাকে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি উঠেছে বিভিন্ন মহল থেকে। নয়তো সাংবাদিকদের প্রতি মানুষের আস্থা আরো কমে যাবে বলে সংশয় প্রকাশ করেছেন অনেকেই। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে পেশাদার সাংবাদিকদের আরও বেশি বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হবে।
সম্প্রতি এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে দেখা যায় সৈয়দা মুনিরা ইসলাম আরটিভি’র স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট হিসেবে পি আই ডির এক্রিডিটেশন কার্ড সংগ্রহ করেছেন। যা ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে।
জানা যায়, এক্ষেত্রে তাকে সার্বিক সহায়তা করেছেন তার ভাই সৈয়দ আশিক রহমান। তিনি একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও)। সেই ক্ষমতা বলেই তিনি নিজের বোনের নামে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আমেরিকার ভিসা করিয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরটিভির একাধিক সাংবাদিক জানান, সারাজীবন সাংবাদিকতা করেও স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট হতে পারলামনা অথচ তিনি সাংবাদিকতা না করেও ভাইয়ের ক্ষমতাবলে সরাসরি স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট হিসেবে পি আই ডি কার্ড করেছেন। এবং সেই কার্ড তিনি অফিসিয়াল চিঠি ইস্যু করে আমেরিকা ভ্রমণও করেছেন।
আরটিভির সাংবাদিকরা আরও জানান, সৈয়দা মুনিরা ইসলাম নামে কোনকালেই আরটিভির কোন রির্পোটার ছিল না। তবে শুধু প্রধানমন্ত্রীর সফর সংক্রান্ত অ্যাসাইনমেন্ট নয় বহিরাগত যে কোন অ্যাসাইনমেন্ট আমাদের না দিয়ে ঐ মহিলার নামে বিদেশ পাঠানো অত্যন্ত দুঃখজনক।

সৈয়দ আশিক নিজে রিপোর্টার না হয়েও ভুয়া রিপোর্টার সেজে বিদেশ ভ্রমণ করেন এবং বেশকিছু অ্যাসাইনমেন্টে তিনি ক্যামেরাম্যান সেজে বিদেশ ভ্রমণ করেছেন এমন অভিযোগ করেছেন স্বয়ং আরটিভিতে কর্মরত সাংবাদিকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই মাত্র পাওয়া খবর

চাকমারকুল মিয়াজীপাড়ায় মিনিবার ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা সম্পন্ন। মোহাম্মদ নোমান রামু কক্সবাজার প্রতিনিধি। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারী ,২০২৩ইং) রাত ৮.০০ টায় রামু উপজেলার চাকমারকুল ইউনিয়নের মিয়াজীপাড়ায় ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান ব্যাপক দর্শক সমাগমের মধ্য দিয়ে বহুল প্রশংসিত এবং প্রত্যাশিত সী-গ্রীন স্পোর্টিং ক্লাব কর্তৃক আয়োজিত মিনি বার ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২২-২৩ এর ফাইনালখেলা সম্পন্ন হয়েছে। উক্ত ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন কলঘর বাজার সিনিয়র ফুটবল দল বনাম মালুম ঘাট ফুটবল দল। মাঠে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচে মালুম ঘাট ফুটবল দলকে ১-০ গোলে পরাজিত করে কলঘর বাজার সিনিয়র ফুটবল দল চ্যাম্পিয়ন হয়।উক্ত খেলায় সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন কলঘর বাজার সিনিয়র ফুটবল দলের খেলোয়াড় আয়াত উল্লাহ। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে ট্রফি সহ নগদ ৫০,০০০ টাকা,পরাজিতদের হাতে ট্রফিসহ নগদ ২০০০০ টাকা পুরস্কার তুলে দেন চাকমারকুল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব মুফিদুল আলম (মুফিদ)। সী-গ্রীন স্পোর্টিং ক্লাবের উপদেষ্টা জনাব সরওয়ার আলমের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাকমারকুল ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার জনাব সাহাব উদ্দিন, ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার জনাব বেলাল উদ্দীন শাহীন, ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার জনাব নুরুল ইসলাম নুরু ১,২,৩ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার জনান্বা আল মর্জিনা, ৪,৫,৬নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার গুলজার বেগম ৭,৮,৯১নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার মরিয়ম বেগম,সমাজ সেবক আমির হোসেন সিকদার, যুব নেতা সালাহ উদ্দীন জনাব সাইফুল ইসলামসহ প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুফিদুল আলম বলেন, যুব সমাজকে খেলাধূলার প্রতি আগ্রহী করে তাদেরকে রক্ষা করতে হবে। যুবসমাজকে রক্ষা করতে পারে একমাত্র ক্রীড়া জগত। তাই বেশি বেশি করে খেলাধূলার আয়োজন করতে হবে। উক্ত টুর্ণামেন্টের পরিচালনায় ছিলেন জানে আলম,ন্হুমায়ুন বিন কাসেম হিরু,জামাল হোসেন,কায়সার,জামশেদ,আশেক,হামিদুর রহমান,মনছুর,সোহেল,মনজুর,জাহেদুল ইসলাম,নুরুসহ প্রমুখ

Don`t copy text!
%d bloggers like this: