পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল মাদারীপুরের শিবচরের বাংলাবাজার ঘাট পরিদর্শন করেছে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিনিধি দল। এই ঐতিহাসিক জনসভায় ১০ লক্ষাধিক মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে প্রতিনিধি দলটি স্পিডবোট যোগে এসে বাংলাবাজার ঘাটের বিভিন্ন পয়েন্ট পরিদর্শন করেন।

আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী পদক্ষেপের কারণে পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন হয়েছে। পদ্মার পাড়ে আশপাশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লাখো লাখো মানুষের অংশগ্রহণে জনসভা এক বিশাল জনসমুদ্রে পরিণত হবে। এই ঐতিহাসিক জনসভায় ১০ লক্ষাধিক মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেবে। আমরা ধারণা করছি পদ্মার দক্ষিণাঞ্চলের প্রায় ২১ জেলার মানুষ সভাস্থলে উপস্থিত থাকবে।’

নাসিম বলেন, ‘জনসভার পর ফানুস উড়ানো থেকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ জমকালো অনুষ্ঠানসূচি আয়োজন করা হবে। এর সার্বিক দায়িত্ব স্থানীয় সংসদ সদস্য ও চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর। সহযোগিতা করবেন সাংগঠনিক সম্পাদক মীর্জা আজম এমপি। দিনব্যাপী এদিন আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠবে পদ্মাপাড়ের মানুষ। দীর্ঘদিনের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটবে এই সভায়।’

এক প্রশ্নের উত্তরে বাহাউদ্দিন নাসিম বলেন, ‘বিএনপির নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তারা যদি কোনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম, ৭৫ এর ঘাতকদের মতো খুন সন্ত্রাস করতে চায় কার্যক্রম পরিচালনা করে তাহলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা নিয়মতান্ত্রিকভাবে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে মোকাবেলা করবো। তাদের কোনো অপশক্তিই মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে না।’

প্রতিনিধি দলে অংশ নেয়া চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের অঞ্চলের অর্থনৈতিক মুক্তির সেতু। সেতুটি চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক মুক্তি ঘটবে। এর ফলে দুটি নৌ বন্দর মোংলা বন্দর, পায়রা বন্দর, স্থলবন্দর বেনাপোলে অর্থনৈতিক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হবে । পদ্মা সেতুর যোগাযোগ ব্যবস্থার সাথে রেললাইনও যুক্ত হওয়ায় চিন্তাই করা যাবে না কি ধরনের অর্থনৈতিক তৎপরতা বাড়বে। পদ্মা সেতু আমাদের স্বপ্নের সেতু এর জনসভাও হবে ঐতিহাসিক।’

প্রতিনিধি দলে আরো উপস্থিত ছিলেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, এ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, এসএম কামাল হোসেন, মাদারীপুর জেলা পরিষদ প্রশাসক মুনির চৌধুরী, জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন, পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল প্রমুখ। এসময় এসএসএফ, জেলা প্রশাসন, পুলিশসহ একাধিক সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Don`t copy text!
%d bloggers like this: