নগরকান্দায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর সর্বস্ব লুট – প্রতারনার অভিযো

 

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের আশফরদী (অষ্টফরদী) গ্রামের মুন্নু মাতুব্বর এর মেয়ে মিম সুলতানা লাকি আক্তার এর প্রেমের ফাঁদে সর্বস্ব হারিয়েছেন সিঙ্গাপুর প্রবাসী রংপুর জেলার গঙ্গাচরা থানার আলোদাতপুর গ্রামের হরিস চন্দ্র রায়ের ছেলে মিলন চন্দ্র রায় (২৮)। প্রায় তিন বছর আগে বিদেশে (সিংগাপুর) পাড়ি দেয়।বিদেশ যাওয়ার এক বছর পর ধেকে মোবাইল ফেসবুক মেঘ বালিকা ও মিম সুলতানা নামের ইমু আইডিতে যোগাযোগ হয় দুইজনের হয় প্রেমের সম্পর্ক। বিয়ের ছলাকলা দিয়ে মিলন চন্দ্র রায় এর কাছ থেকে টাকাপয়সা হাতিয়ে নেয় ও এক পর্যায় মিলনকে বাংলাদেশে বিয়ে করার জন্য আসতে বলে।এক বছর পূর্বে মিলন বিয়ে করতে দেশে চলে আসে ঢাকায় বাসা ভাড়া করে কলেমা পড়ে তওবা করে মুসলমান হয়ে বিয়ে করে দুইজন একত্রে প্রায় ৫ মাস ঘরসংসার করে। পুনরায় আবার চলে যায় সিংগাপুর মিলন চন্দ্র রায়। বিদেশ থেকে দেশের উদ্দেশে গত ৮ অক্টোবর সকাল ৬ টায় বাংলাদেশ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এসে নামেন প্রাইভেট গাড়ী নিয়ে বিমান বন্দরে রিসিভ করার জন্য অপেক্ষায় থাকেন মিম সুলতানা লাকি। বিমান বন্দর থেকে লাকির ভাড়া করা প্রাইভেট গাড়ীতে মিলন চন্দ্র রায় এর মাল সামানা লাগেজ
তুলে ২ নং গেট দিয়ে প্রাইভেটকার বের হয়।সে সময় পানি পিপাসার জন্য গাড়ি থামিয়ে মিলন চন্দ্র রায় গাড়ি থেকে নেমে পাশের কিছু দুরে একটি দোকানে যায় এবং পানি কিনে পান করে ও একটা সিগারেট কিনে আগুন ধরিয়ে কয়েক টান দেওয়া মাত্রই চোখের পলকে মালামাল সহ গাড়ি নিয়ে উদাও হয়ে যায় মিম সুলতানা লাকি। পাগলের মতো খুজতে থাকে আশপাশ। খুজে না পাওয়ায় নিজে বাদী হয়ে মিম সুলতানা লাকির বিরুদ্ধে বিমান বন্দর থানায় একটি অভিযোগ করেন। পরে ঢাকা ভাড়া বাসায় গিয়ে খোজ নিয়ে মিম সুলতানা লাকি আক্তার এর সঠিক পরিচয় পায়।খোজ নিতে নিতে বৃহস্পতিবার রাত ৮ টার সময় চলে আসে নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের আশফরদী গ্রামে মুন্নু মাতুব্বর এর বাড়ি।হিন্দুর ছেলে মুসলমান এর বাড়িতে আশা মাত্র গ্রামের আশেপাশের শত শত লোকজন এসে ভিড় করে।শেষমেশ এলাকার লোকজন জানতে পারে দুইজনের প্রেম, বিয়ের ঘটনা ও বিদেশ থেকে নিয়ে আসা মালসামানা ও লাগেজ হাতিয়ে আনার গল্প।
বর্মানে৷ পাগলের মতো আশফরদী গ্রামের এক মাতুব্বর এর বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে আছেন মিলন চন্দ্র রায়। মিলন চন্দ্র রায় বলেন বিদেশে গিয়ে তার আইডিতে পরিচয় হয় তারপর দেশে এনে কলেমা পড়িয়ে মুসলমান বানিয়ে দুইজনে বিয়ে করি ঘরসংসার করি গত ৮ তারিখে বিদেশ থেকে দেশে আসলে বিমান বন্দর থেকে আমার ১০০ গ্রাম সোনা, মাল সামানা লাগেজ নিয়ে উধাউ হযে যায়। প্রায় ১২ লাখ টাকার জিনিসপত্র নিয়ে যায়। পরে খোজ নিয়ে তার গ্রামের বাড়ি আসি,এখন তারা আমার মাল সামানা কিছুই ফেরত দিচ্ছেনা। এছাড়া তারা বাড়ি থেকে সবাই পালিয়েছে, দুর থেকে মানুষ দিযে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। বাড়িতে গিয়ে কাওকে না পাওয়ায় তাদের বক্তব্য জানা যায়নি। তবে মিম সুলতানা লাকি আক্তার এর আগে একাধিক বিয়ে করেন এবং দুই স্বামীর ঘরে দুটি সন্তান রয়েছে। গ্রামে লাকি নামে ডাকলেও তিনি কখনো মিম সুলতানা, কখনো লাকি আক্তার সহ একাধিক পরিচয় দিয়ে প্রেমের ইতিহাস রচনা করে বিয়ের পিড়িতে বসছেন।মিম সুলতানা লাকির ফাঁদে পড়ে সর্বস্থ খুয়েছেন অনেকেই বললেন এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Don`t copy text!
%d bloggers like this: