আব্দুল কাদের, জেলা প্রতিনিধি: 

 

২৬ শে সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সন্ধার পর কৃষ্ণনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্মানিত সভাপতি ও এম ইসরাত হিমাগার লি: এর ম্যানেজার এবং মাটির বাজার কমিটির সভাপতি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এবং সমাজসেবক জনাব মোঃ রায়হান আলম এর উদ্যোগে গণসংযোগ এবং সাধারণ ভোটারদের সাথে সৌজন্য মহরার আয়োজন করেন।

বড়তারা ইউনিয়নের একজন সফল ও দক্ষ চেয়ারম্যান জনাব বোরহান উদ্দিন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নৌকা মার্কা মনোনয়ন প্রত্যাশী একজন মানবসেবী মানুষ। বড়তারা ইউনিয়ন মানেই শান্তির এক ইউনিয়ন। তিনি শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস যোগ্য করেছেন। তার কর্মী বা সমর্থক ও জনসাধারণ কোন অন্যায় কাজ করলেও ন্যায়ের পক্ষ নিয়ে সেই বিচারের রায় দিয়েছেন। বড়তারা ইউনিয়নে কোন দালাল বাহিনী বা তাঁর কর্মী সমাজের শান্তি নষ্ট করে এমন কোন কাজে দলমত নির্বিশেষে সাপোর্ট দেননি বরং পরিষদে কোন সরকারি অনুদান আসলে প্রত্যেকটা ওর্য়াড থেকে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ ইউ.পি সদস্যদেরকে সুষ্ঠু বন্টন করেন। প্রতেকটা গ্রামেই তার উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে তার প্রমাণ প্রত্যেক গ্রামে বা মহল্লায় প্রবেশ করলে লক্ষ করা যায় বাস্তবায়নে বোরহান উদ্দিন চেয়ারম্যান।বলা যায় সপ্রবি, স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও এতিমখানা অগ্রাধিকারের ভিত্তিতেই জরুরি কাজ গুলো আগে করেছেন। তিনি যেকোন সামাজিক অনুষ্ঠানে সততার সাথে সু-শৃংখলভাবে সামর্থ অনুসারে সরকারি/ব্যক্তিগতভাবে সহযোগিতা করে আসছেন।তিনি অন্য কোন নেতাদের মতো এই কাজ করে দিবো, দিচ্ছি, করবো, এমন কোন মিথ্যা কাজের আশ্বাস দেয় নাই। সরকারি বরাদ্দের উপর নির্ভর করে বড়তারা ইউনিয়নবাসীর জন্য নিরস কাজ করে যাচ্ছে। তিনি ইউনিয়ন পরিষদকে একটি মডেল ইউনিয়নে রুপান্তরিত করেছেন যা বড়তারা গ্রামের ইউনিয়ন অফিসে আসলে বুঝা যায় পাশাপাশি সেবার মান অন্তত্য প্রশংসার (জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন)দাবিদার।তাঁর বড় একটি গুন ইউনিয়নের কোন অপ্রীতিকর ঘটনার জন্য কাউকে হয়রানি বা মামলা করার পরামর্শ দেননি বরং ভালোবাসা দিয়ে সমাধান করে আসছেন। বড়তারা ইউনিয়নবাসীসহ এলাকার মানুষ বঙ্গবন্ধুর আর্দশে ভালোবেসে আপন করেছেন। পারিবারিক, জমি-জমা, রাস্তা-ঘাট, চিকিৎসা সেবাসহ কোন সমস্যা হলে গ্রাম্য আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করে আসছেন যা জয়পুরহাট জেলায় বিরল ইতিহাস।সরকারী অফিস সরকারী নিয়মেই চালান। এই মহান গুণের কারণে সৃষ্টিকর্তা তাঁকে দুইবার জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন এবং সরকারি ভাবে বিদেশ সফর করেছেন এবং প্রতিবছর কর্মদক্ষতার উপর বিশেষ বরাদ্দ প্রাপ্ত হয়েছেন যা ইউনিয়নের বাড়তি উন্নয়ন ও সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি করেছেন।এছাড়াও তিনি বিভিন্ন ক্যাটাগড়িতে স্বর্ণপদক ও সন্মাননা পদকসহ অসংখ্য সফলতার সনদ অর্জন করেছেন। এরপরও মানুষের ভুল ক্রুটি থাকবে, ভুলের উর্ধে মানুষ নয়, তাই আমি বোরহান উদ্দিন চেয়ারম্যান আমার ভুলগুলো শুদরে দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কর্তৃক দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্ত নৌকা মার্কায় দেশের উন্নয়নের স্বার্থে আপনারা ভোট দিয়ে আমাকে আপনাদের অন্তরে জায়গা করার সুযোগ চেয়ে জয়যুক্ত করবেন আশা করছি। ভালোবাসা টাকা দিয়ে পাওয়া যায় না, ভালোবাসা মানব সেবা করলেই পাওয়া যায় বলে আমি মনে করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Don`t copy text!
%d bloggers like this: